চুলের যত্নে ১৮ টিপস

চুলের যত্নে ১৮ টিপস —চমৎকার চুল আপনাকে আনন্দিত এবং উচ্ছ্বসিত বোধ করে এবং আপনার স্বপ্নের চুল অর্জন করা কোনও বড় কৃতিত্ব নয় এবং খুব কঠিন কিছু নয় ...

চমৎকার চুল আপনাকে আনন্দিত এবং উচ্ছ্বসিত বোধ করে এবং আপনার স্বপ্নের চুল অর্জন করা কোনও বড় কৃতিত্ব নয় এবং খুব কঠিন কিছু নয়, তবে চুলের গৌরব বজায় রাখা বড় চ্যালেঞ্জ।  

এই আর্টিকেল থেকে খুঁজে বের করুন চুলের যত্নে ১৮ টিপস (প্রত্যেক মেয়েদের জানা উচিত ) ।  

চুলের যত্নে ১৮ টিপস
Image source: pexels

মেয়েদের জন্য সেরা চুলের টিপস

১. সালফেট-মুক্ত শ্যাম্পু ব্যবহার করুন:

আপনি সত্যিই আপনার চুলের ক্ষতি করে এমন সমস্ত পরিবেশগত কারণগুলি নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন না, তবে আপনি যে ধরণের শ্যাম্পুগুলি ব্যবহার করেন তা আপনি নিয়ন্ত্রণ করতে পারেন।  আপনার শ্যাম্পুতে রাসায়নিকের সংখ্যা কম, আপনার চুল স্বাস্থ্যকর।  আপনার চুলের ধরন অনুসারে মৃদু শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।

শ্যাম্পুতে সালফেট, প্যারাবেন, ল্যাথারিং সংরক্ষণের জন্য ব্যবহৃত হয়, তবে তারা সময়ের সাথে সাথে ত্বকের জ্বালা সৃষ্টি করতে পারে এবং হরমোনের ব্যাঘাতের ঝুঁকি বাড়ায়।

২. ভেজা চুল ব্রাশ করা এড়িয়ে চলুন:

ভেজা অবস্থায় চুল সবচেয়ে দুর্বল থাকে।  চুল ভাঙ্গা রোধ করতে, ভেজা চুল ব্রাশ না করা নিশ্চিত করুন।  আপনার চুল আঁচড়ানোর আগে আপনার চুল কমপক্ষে  ৭০ শতাংশ শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন।

৩. একটি চওড়া দাঁতযুক্ত চিরুনি ব্যবহার করুন:

একটি প্রশস্ত দাঁতযুক্ত চিরুনি প্রত্যেকের জন্য আবশ্যক।  এটি চুল পড়া ছাড়াই আপনার চুলকে বিচ্ছিন্ন করতে সাহায্য করে এবং আপনার চুলের সমস্ত গিঁট থেকে আলতো করে পরিত্রাণ পায়।  চুল বিচ্ছিন্ন হয়েছে তা নিশ্চিত করতে চুলের স্টাইলিং চিরুনি বা ব্রাশ ব্যবহার করার আগে একটি চওড়া দাঁতযুক্ত চিরুনি ব্যবহার করা ভাল।

৪. নিয়মিত ছাঁটাই:

চুল ছাঁটাই করা আবশ্যক, এমনকি যখন আপনি আপনার দৈর্ঘ্য বাড়ানোর চেষ্টা করছেন।  ঘন ঘন ছাঁটা (প্রতি আট থেকে বারো সপ্তাহে একবার সুপারিশ করি) বিভক্ত প্রান্ত থেকে পরিত্রাণ পেতে সাহায্য করে।  এটি আপনার চুলের প্রান্তগুলিকে ঝরঝরে এবং বিভক্ত প্রান্ত থেকে মুক্ত রাখবে এবং চুল ভাঙাও কম করবে।

৫. চুলের জন্য প্রোটিন মাস্ক:

আপনার চুল সেরা পুষ্টির দাবিদার।  আপনার চুলে প্রচুর প্রোটিন খাওয়ানোর জন্য, একটি সম্পূর্ণ ডিম, আধা কাপ দই এবং দুই টেবিল চামচ নারকেল তেল দিয়ে একটি মাস্ক তৈরি করুন।  সমানভাবে প্রয়োগ করুন এবং ৪৫ মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন।  একটি হালকা শ্যাম্পু ব্যবহার করুন এবং দেখুন আপনার চুল কতটা নরম লাগছে।

৬. গরম জল এড়িয়ে চলুন:

গরম জল আপনার সুন্দর চুলের জন্য ধ্বংসের মন্ত্র।  এটি চুল ভেঙ্গে দেয়, নিস্তেজ ও প্রাণহীন করে তোলে।  আপনার গরম ঝরনা সংক্ষিপ্ত করুন এবং যতটা সম্ভব স্বাভাবিক-ঠান্ডা জল অবলম্বন করুন।  এটি আপনার চুলকে রুক্ষ ও ঝরঝরে হওয়া থেকে রক্ষা করবে।

৭. আপনার চুল প্রাকৃতিকভাবে শুকিয়ে নিন

আমরা জানি—  ব্লো ড্রাইং আপনার চুলকে আপনার অন-স্ক্রিন আইডলের মতো সুন্দর করে তোলে।  কিন্তু অতিরিক্ত হিট স্টাইলিং আপনার চুলের মাথার ত্বকের ক্ষতি করতে পারে।  আপনার যদি স্টাইল করতে হয় তবে এটি গুরুত্বপূর্ণ ইভেন্টগুলিতে সীমাবদ্ধ করুন।  শ্যাম্পুর পর বাতাসে শুকানো বা তোয়ালে শুকানোই সবচেয়ে ভালো উপায়।  কখনই ভেজা চুলে ঘুমাবেন না বা ভেজা চুল আঁচড়াবেন না। তোয়ালে দিয়ে শক্তভাবে ঘষলে চুলের কিউটিকল ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।

৮. সঠিকভাবে আপনার চুলে তেল ব্যবহার করুন

প্রি-শ্যাম্পু ট্রিটমেন্ট যেমন তেল মাখানো এবং ম্যাসাজ করা মাথার ত্বকে রক্ত ​​সঞ্চালন উন্নত করে, আপনার পেশী শিথিল করে, চকচকে বাড়ায় এবং চুলকে পুষ্ট করে।  এটি আর্দ্রতা পুনরুদ্ধার করে, চুলের বৃদ্ধি সক্ষম করে এবং বিভক্ত প্রান্তগুলি মেরামত করে।  আপনি নারকেল তেল, বাদাম তেল, জলপাই তেল, ক্যাস্টর তেল এবং পছন্দগুলি থেকে বেছে নিতে পারেন।  আপনার চুলে খনিজ তেল ব্যবহার করা এড়িয়ে চলুন।

৯. পরিপূরক গ্রহণ করুন:

আমাদের ব্যস্ত জীবনধারা প্রায়শই আমাদের সুষম খাদ্যকে অবহেলা করে।  ফলস্বরূপ, আমরা প্রয়োজনীয় পুষ্টি থেকে বঞ্চিত হই, যা আমাদের চুলের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকারক প্রমাণিত হয়।  আপনার চুল সর্বোত্তম ভিটামিন এবং খনিজ পায় তা নিশ্চিত করার জন্য, আপনি আপনার ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী সম্পূরক গ্রহণ করতে পারেন।  আপনার দৈনন্দিন খাদ্যতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার জন্য একটি ভাল ভিটামিন সম্পূরক হল বায়োটিন যা চুলের বৃদ্ধিকে উৎসাহিত করে।

১০. রোদ থেকে আপনার চুল রক্ষা করুন:

আমরা যখন সানস্ক্রিন লাগানোর যত্ন নিই, আমরা আমাদের মূল্যবান চুলের প্রতি একই মনোযোগ দেখাতে ভুলে যাই।  দীর্ঘক্ষণ সূর্যের এক্সপোজার চুলকে শুষ্ক ও ভঙ্গুর করে তোলে এবং চুলের রঙও বিবর্ণ করে দেয়।  রোদ থেকে আপনার চুলকে রক্ষা করতে, একটি সূর্য রক্ষাকারী হেয়ার সিরাম লাগান এবং যতটা সম্ভব আপনার চুল ঢেকে রাখুন।  সরাসরি সূর্যের এক্সপোজার এড়াতে একটি টুপি বা স্কার্ফ ব্যবহার করার চেষ্টা করুন।

১১. একটি সিল্ক বালিশ ব্যবহার করুন:

একটি সিল্কের বালিশ হল আপনার ঘুমের সময় চুলের ক্ষতি কমানোর জন্য নিখুঁত সমাধান।  সাধারণ বালিশের কারণে ঘর্ষণ চুল ভেঙ্গে যাওয়ার প্রবণতা সৃষ্টি করে এবং ফ্লাইওয়ে ও কুঁকড়ে যায়।  সিল্কের বালিশে ঘুমালে আপনার চুলকে মসৃণ এবং সিল্কি করে তোলে, কোনো ঝাপসা ছাড়াই।

১২. খুশকির জন্য লেবুর রস:

লেবুর রস খুশকি প্রতিরোধে সবচেয়ে কার্যকরী উপাদানগুলির মধ্যে একটি।  একটি তাজা লেবু থেকে রস বের করে আপনার মাথার ত্বকে লাগান।  ১৫ মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং ধুয়ে ফেলুন।  মাত্র ২—৩ ব্যবহারেই আপনার চুলের খুশকি দূর হয়ে যাবে।

১৩. চুলের বৃদ্ধির জন্য পেঁয়াজের রস:

পেঁয়াজে প্রচুর পরিমাণে সালফার থাকে।  এছাড়াও, এটি শক্তিশালী অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল বৈশিষ্ট্য রয়েছে।  পেঁয়াজের রস লাগালে চুলের পুনঃবৃদ্ধি এবং চুল মজবুত হয়।  এটি আপনার চুলকে সুস্থ রাখে এবং সংক্রমণ থেকে মুক্ত রাখে।

১৪. স্বাস্থ্যকর খান, হাইড্রেটেড থাকুন: 

আপনি যা খান তা আপনার ত্বক এবং চুলের উপর প্রতিফলিত হয়।  প্রচুর পরিমাণে জল পান করুন এবং পর্যাপ্ত প্রোটিন এবং স্বাস্থ্যকর চর্বিযুক্ত সুষম খাবার খান।  এটি আপনাকে চুল দেবে যা দেখতে বাউন্সি এবং বিশাল এবং স্পর্শে খুব নরম।

চুলের যত্ন ব্যাবহার করবেন না —

১. গরম ঝরনা

গরম ঝরনা আপনার মাথার ত্বক থেকে প্রাকৃতিক তেলকে শুষ্ক এবং ফ্ল্যাকি করে ফেলে।  ঠান্ডা ঝরনা আপনার চুলের যত্নে সেরা।

২. স্ট্রেস

আপনি যদি স্বাস্থ্যকর চুলের সাথে কাউকে লক্ষ্য করেন তবে আমরা আমাদের জীবন বাজি রেখে বলতে পারি যে তারা কিছুটা কম চিন্তা করে।  স্ট্রেস চুল পড়া এবং অস্বাস্থ্যকর চুলের কারণ হতে পারে।

৩. রাসায়নিক

ডাইং, পার্মিং এবং চুলের অন্যান্য চিকিৎসার রাসায়নিকগুলি আপনার চুলের ফলিকলগুলিকে প্রভাবিত করে, চুলের বৃদ্ধি ব্যাহত করে এবং চুল পড়ে যেতে পারে।

৪. চুলের স্টাইলিং পণ্য

দীর্ঘ সময় ধরে স্ট্রেইটনার, ব্লো ড্রায়ার এবং কালার ব্যবহার করে হিট স্টাইলিং চুলের গঠন পরিবর্তন করে, চুল শুষ্ক করে এবং ভাঙ্গার প্রবণতা তৈরি করে।

৫. লবণ জল দিয়ে চুল ধোয়া

লবণ পানি চুলের কিউটিকলের ক্ষতি করে, মাথার ত্বকে জ্বালাপোড়া করে এবং চুলকে জট করে দেয়।  সুইমিং পুলে ক্লোরিনযুক্ত জল এড়িয়ে চলুন।

চুলের যত্ন না নিলে কি হয়?

আপনি যদি আপনার চুলের যত্ন না নেন তবে —  ধীরে ধীরে, আপনি খুশকি, চুল পড়া, শুষ্কতা এবং নিস্তেজতা অনুভব করতে শুরু করতে পারেন।

দীর্ঘ সময় ধরে চুল না ধোয়ার ফলে চুল পড়ে যেতে পারে। এছাড়াও, দীর্ঘ সময় ধরে আপনার চুল না ধুয়ে রেখে, আপনি আরও ধুলো আকর্ষণ করছেন। এবং ভুল হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্ট ব্যবহার করলে আপনি চুলকানি অনুভব করতে পারেন এবং চুল পড়ে যেতে পারে।

তাই আপনার স্বতন্ত্র চুলের ধরণের জন্য তৈরি রাসায়নিক-মুক্ত পণ্যগুলি ব্যবহার করে, সঠিক খাওয়া, স্টাইল এড়ানো এবং উপরের সমস্ত টিপস অনুসরণ করে, আপনি চুলের খারাপ দিনগুলিকে বিদায় দিতে পারেন!  তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ, চুলের যত্নের একটি ভালো রুটিন অনুসরণ করেও যদি আপনি অতিরিক্ত চুল পড়া বন্ধ করতে পারেন। এবং আপনার ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন।

Qspothub is a Blogging Platform About Digital marketing, internet, information, Tips and so on .

Post a Comment